United Commercial Bank (UCB)

শনিবার

০৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৩


২২ মাঘ ১৪২৯,

১২ রজব ১৪৪৪

যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে রাশিয়ার পরমাণু যুদ্ধ হলে ৫০ কোটি মানুষের মৃত্যু হবে: রিপোর্ট

আন্তর্জাতিক ডেস্ক || বিজনেস ইনসাইডার

প্রকাশিত: ১৭:১৮, ১৬ আগস্ট ২০২২   আপডেট: ১৭:২৭, ১৬ আগস্ট ২০২২
যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে রাশিয়ার পরমাণু যুদ্ধ হলে ৫০ কোটি মানুষের মৃত্যু হবে: রিপোর্ট

ছবি: সংগৃহীত

ঢাকা (১৬ আগস্ট): আমেরিকার সঙ্গে রাশিয়ার পরমাণু যুদ্ধ শুরু হলে সারাবিশ্বে দুর্ভিক্ষে কমপক্ষে ৫০ কোটি মানুষের মৃত্যু হবে। এ ছাড়া আরও একাধিক ভয়াবহ পরিণতির মুখে পড়তে হবে মানবসভ্যতাকে। আমেরিকার রাটগার্স বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি রিপোর্টে এমনটাই দাবি করা হয়েছে বলে সায়েন্স ডেইলি জানিয়েছে।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে ‘বিশেষ সামরিক অভিযান’-এর মোড়কে পুরোদস্তুর যুদ্ধ শুরু করে রাশিয়া। তার পর সেই যুদ্ধ চলছেই। ঘটনাচক্রে, তাতে পরোক্ষ ভাবে জড়িয়ে পড়েছে বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী অর্থনীতি আমেরিকাও। এই প্রেক্ষিতে রাশিয়ার সঙ্গে আমেরিকার পরমাণু যুদ্ধের সম্ভাবনা নিয়ে গবেষণা করেছে নিউ জার্সির রাটগার্স বিশ্ববিদ্যালয়।

এতে দেখা যাচ্ছে, যুদ্ধ এক বার শুরু হলে তাতে কমপক্ষে ৫০ কোটি মানুষের মৃত্যুর সম্ভাবনা রয়েছে। এছাড়াও, ভয়াবহ পরিণতির মুখে পড়তে পারে সামগ্রিক মানব সভ্যতাই। বায়ুমণ্ডলে তৈরি হতে পারে একটি অস্পষ্ট আস্তরণ। যাতে আটকে যাবে সূর্যের কিরণ। ভয়ঙ্কর ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে কৃষিও। এমনকি কৃষি ব্যবস্থাই পুরোপুরি বদলে যেতে পারে।

‘নেচার ফুড’ নামে একটি বিজ্ঞান গবেষণা জার্নালে রাটগার্সের গবেষকদের প্রকাশিত রিপোর্টে বলা হয়েছে, রাটগার্সের গবেষকরা পরমাণু যুদ্ধের সম্ভাব্য মোট ছ’টি পরিণতি নিয়ে গবেষণা করেছেন। তাতে দেখা যাচ্ছে রাশিয়া-আমেরিকা পুরোদস্তুর পরমাণু যুদ্ধের সবচেয়ে খারাপ পরিণতি হিসেবে বিশ্বের অর্ধেক মানুষের মৃত্যু হতে পারে।

এ গবেষণার অন্যতম গবেষক অধ্যাপক অ্যালান রোয়েবাক বলেছেন, এ গবেষণার ডাটা আমাদেরকে কেবল একটি কথাই বলছে। সেটা হলো, পরমাণু যুদ্ধ যেন কোনো ভাবেই না ঘটে, সেটা আমাদের নিশ্চিত করতে হবে।

গবেষণায় বিশ্লেষণ করা ছয়টি পরিস্থিতির মধ্যে পাঁচটি পরিস্থিতি বিশ্লেষণ করা হয়েছে তুলনামুলক ভাবে কম ভয়াবহ যুদ্ধের উপর ভিত্তি করে। আর একটি পরিস্থিতি বিশ্লেষণ করা হয়েছে মার্কিন ও রাশিয়ার মধ্যে যুদ্ধের উপর ভিত্তি করে।

সবচেয়ে ভয়াবহ পরিস্থিতি প্রসঙ্গে বিশ্লেষণে বলা হয়েছে, একটি পূর্ণ মাত্রার পারমাণবিক যুদ্ধ শেষ হওয়ার তিন থেকে চার বছর পর বিশ্বব্যাপী গড় ক্যালোরি উৎপাদন প্রায় ৯০% কমে যাবে। দুই বছরের মধ্যে ফসল উৎপাদন ৭৫% কমে যাবে। এর ফলে কোটি কোটি মানুষ ক্ষুধা দারিদ্রের শিকার হবে।

রাটগার্স বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী গবেষণা অধ্যাপক লিলি জিয়া বলেছেন যে, পরমাণু যুদ্ধ জলবায়ু পরিবর্তনের উপর চরম মাত্রায় প্রভাব ফেলবে।

তিনি বলেন, "ওজোন স্তর স্ট্রাটোস্ফিয়ারের উত্তাপে ধ্বংস হয়ে যাবে। এরফলে ভূপৃষ্ঠে আরও অতিবেগুনী বিকিরণ তৈরি করবে এবং আমাদের খাদ্য সরবরাহের উপর সেই প্রভাব কতটা পড়তে পারে সেটা খুব সহজেই অনুমেয়।

প্রসঙ্গত, ইউক্রেন যুদ্ধ শুরুর পর এপ্রিলে রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ আশঙ্কা প্রকাশ করেছিলেন, যে কোনও সময় পরমাণু যুদ্ধ শুরু হয়ে যেতে পারে। কিন্তু তা শুরু হলে যে কী ভয়াবহ পরিণতি অপেক্ষা করছে মানবসভ্যতার জন্য, তা কিছুটা হলেও এ গবেষণা রিপোর্টে তুলে ধরা হয়েছে।

 

Nagad

সর্বশেষ