United Commercial Bank (UCB)

শুক্রবার

২৭ জানুয়ারি ২০২৩


১৪ মাঘ ১৪২৯,

০৪ রজব ১৪৪৪

চীনে করোনার সব কঠোর বিধিনিষেধ প্রত্যাহার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক || বিজনেস ইনসাইডার

প্রকাশিত: ১৩:৩৯, ৭ ডিসেম্বর ২০২২  
চীনে করোনার সব কঠোর বিধিনিষেধ প্রত্যাহার

ছবি: সংগৃহীত

ঢাকা (০৭ ডিসেম্বর): করোনা সংক্রান্ত সব কঠোর বিধিনিষেধ প্রত্যাহার করে নিয়েছে চীনের সরকার। দেশজুড়ে লকডাউন নিয়ে বিক্ষোভের প্রায় এক সপ্তাহ পর চীনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় করোনার বিধিনিষেধ সংক্রান্ত নতুন নির্দেশনা দিয়েছে।

এর মধ্য দিয়ে চীন কঠোর জিরো কোভিড নীতি থেকে সরে আসছে এবং বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো ‘করোনা নিয়েই বসবাস’ করার প্রস্তুতি নিচ্ছে।

নির্দেশনায় বলা হয়েছে, যদি এখন কেউ করোনায় আক্রান্ত হন তাহলে তাকে সরকার নিয়ন্ত্রিত কেন্দ্রীয় কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে যেতে হবে না। এর বদলে আক্রান্ত ব্যক্তি বাড়ি এবং পরিবারের কাছেই থাকতে পারবেন এবং বাড়িতে বসেই করোনা পরীক্ষা করাতে পারবেন। আর বয়োজ্যেষ্ঠদের দ্রুত সময়ের মধ্যে ভ্যাকসিন দেওয়ার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

এতদিন চীনের নিয়ম ছিল কেউ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হলে তাকে জোর করে বাড়ি থেকে নিয়ে যেতেন সরকারি কর্মকর্তারা।

এছাড়া আগে পাবলিক ভেন্যুগুলোতে বা বড় জমায়েতে যোগ দিতে বাধ্যতামূলক পিসিআর টেস্ট করাতে হতো। এই নিয়মও তুলে দেওয়া হয়েছে। এখন শুধুমাত্র হাসপাতাল এবং স্কুলে যেতে পিসিআর টেস্ট করাতে হবে।

লকডাউন আরোপিত এলাকা/ভবনে যদি নতুন করে কেউ আক্রান্ত না হন তাহলে পাঁচদিন পর সেটি তুলে দিতে হবে।

যদি স্কুলে সংক্রমণ মাত্র দুই-তিনজনের মধ্যে থাকে তাহলে শিক্ষা কার্যক্রম চলবে। সংক্রমণ বেশি ছড়িয়ে পড়লে তখন স্কুল বন্ধ করা যেতে পারে।

এছাড়া লকডাউন আরোপিত ভবনে জরুরি অবস্থায় বের হওয়ার ব্যবস্থা নিশ্চিত রাখতে হবে। যেন অগ্নিকাণ্ড বা অন্য কোনো দুর্ঘটনা ঘটলে মানুষ দ্রুত বের হয়ে যেতে পারেন।

গত মাসে শিনজিয়ান প্রদেশের উরুমকি শহরের একটি ভবনে আগুন লেগে ১০ জন মানুষ নিহত হন। ওই সময় ওই এলাকায় লকডাউন ছিল।

বলা হচ্ছে, লকডাউনের কারণে মানুষ বের হতে পারেননি। ফলে এত হতাহতের ঘটনা ঘটে। যদিও চীন সরকার তা অস্বীকার করেছে। তবে ওই ঘটনার পরই রাজধানী বেইজিংসহ বিভিন্ন শহরে বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছিল।

 

Nagad

সর্বশেষ