United Commercial Bank (UCB)

বৃহস্পতিবার

১৮ আগস্ট ২০২২


৩ ভাদ্র ১৪২৯,

১৮ মুহররম ১৪৪৪

নূপুর শর্মাকে জাতির কাছে ক্ষমা চাওয়ার নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক || বিজনেস ইনসাইডার

প্রকাশিত: ১৭:৪৫, ১ জুলাই ২০২২   আপডেট: ১৭:৪৭, ১ জুলাই ২০২২
নূপুর শর্মাকে জাতির কাছে ক্ষমা চাওয়ার নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের

ছবি: সংগৃহীত

ঢাকা (০১ জুলাই): মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-কে নিয়ে অবমাননাকর মন্তব্যের জন্য বিজেপির বহিষ্কৃত মুখপাত্র নূপুর শর্মাকে গোটা জাতির কাছে ক্ষমা চাওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন ভারতের সুপ্রিম কোর্ট। খবর এনডিটিভি, জি নিউজ।

মে মাসে এক টেলিভিশন বিতর্কে মহানবী (সা.)-কে নিয়ে অবমাননাকর মন্তব্য করেন নূপুর শর্মা। এরপর তার বিরুদ্ধে ভারতের বিভিন্ন স্থানে এফআইআর দায়ের হয়। সেসব এফআইআর দিল্লিতে স্থানান্তরের জন্য তিনি শুক্রবার সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করেন।

শুনানিতে নূপুর শর্মার আইনজীবী দাবি করেন, তার মক্কেল হুমকির মুখে রয়েছেন। জবাবে বিচারপতি সূর্য কান্ত বলেন, তিনি হুমকির মুখে রয়েছেন নাকি নিজেই নিরাপত্তা হুমকি হয়ে উঠেছেন? তিনি দেশজুড়ে (ধর্মীয়) আবেগ উসকে দিয়েছেন। দেশে যা কিছু ঘটছে, তার জন্য এই নারী একাই দায়ী।

বিচারপতি বলেন, কীভাবে তিনি (নূপুর শর্মা) বিতর্ক উসকে দিয়েছেন তা আমরা দেখেছি। কিন্তু যেভাবে তিনি পুরো বিষয়টি বললেন এবং পরবর্তীতে নিজেকে আইনজীবী হিসেবে পরিচয় দিলেন, তা লজ্জাজনক। তার উচিত গোটা জাতির কাছে ক্ষমা চাওয়া।

সর্বোচ্চ আদালত আরও বলেন, নূপুর শর্মার মন্তব্যের মধ্য দিয়ে তার ‘একগুঁয়ে ও অহংকারী আচরণ’ প্রকাশ পেয়েছে। বিচারপতি সূর্য কান্ত বলেন, তিনি (নূপুর শর্মা) একটি দলের মুখপাত্র হলে যা হয়। তিনি ভেবেছেন, তার প্রতি সরকারের সমর্থন রয়েছে এবং দেশের আইনের প্রতি শ্রদ্ধা ছাড়াই যেকোনো বক্তব্য দিতে পারেন।

এসময় নূপুর শর্মার আইনজীবী বলেন, তিনি কেবল টেলিভিশন বিতর্কে সঞ্চালকের প্রশ্নের জবাব দিয়েছেন। জবাবে সর্বোচ্চ আদালত বলেন, তাহলে সঞ্চালকের বিরুদ্ধেও মামলা হওয়া উচিত।

এসময় টিভি চ্যানেল ও দিল্লি পুলিশের ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন ভারতের সর্বোচ্চ আদালত। বিচারপতিরা বলেন, দিল্লি পুলিশ কী করেছে? আমাদের মুখ খোলাবেন না, টিভিতে বিতর্ক কী নিয়ে ছিল? তারা কেন একটি বিচারাধীন বিষয় বেছে নিলো?

নূপুর শর্মার ঘটনায় পুলিশের ভূমিকার সমালোচনা করে ভারতীয় সুপ্রিম কোর্ট বলেন, আপনারা যখন অন্যদের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করেন, তারা তৎক্ষণাৎ গ্রেফতার হন। কিন্তু যখন অভিযোগ আপনাদের বিরুদ্ধে, তখন কেউ আপনাদের স্পর্শ করার সাহস পায় না।

এ অবস্থায় সারা দেশে দায়ের হওয়া এফআইআরগুলো দিল্লিতে স্থানান্তরে নূপুর শর্মার আবেদন গ্রহণ করতে অস্বীকৃতি জানান বিচারপতি সূর্যকান্ত এবং বিচারপতি জেবি পারাডিওয়ালা।

 

Nagad

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়