শনিবার

১৮ মে ২০২৪


৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১,

১০ জ্বিলকদ ১৪৪৫

রোজা-ঈদ উপলক্ষে মার্চে মোবাইল ব্যাংকিংয়ে সর্বোচ্চ মাসিক লেনদেনের রেকর্ড

নিজস্ব প্রতিবেদক || বিজনেস ইনসাইডার

প্রকাশিত: ১৫:২২, ১৫ মে ২০২৪  
রোজা-ঈদ উপলক্ষে মার্চে মোবাইল ব্যাংকিংয়ে সর্বোচ্চ মাসিক লেনদেনের রেকর্ড

সংগৃহিত

নিজস্ব প্রতিবেদক: চলতি বছরের মার্চে মোবাইল ব্যাংকিং বা মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসেসের (এমএফএস) মাধ্যমে রেকর্ড ১ দশমিক ৪৮ লাখ কোটি টাকার লেনদেন হয়েছে। যা আগের মাস ফেব্রুয়ারির তুলনায় ১৮ হাজার ১৯৫ কোটি টাকা বা ১৪ শতাংশ বেশি।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য বলছে, এর আগে সর্বোচ্চ লেনদেন হয়েছে ২০২৩ সালের জুনে। সেই সময়ে এমএফএস প্রতিষ্ঠানগুলোর মাধ্যমে লেনদেন হয়েছে ১ দশমিক ৩২ লাখ কোটি টাকা। এছাড়া, এমএফএসের মাধ্যমে সর্বপ্রথম এক লাখ কোটি টাকা লেনদেন হয়েছে ২০২২ সালের এপ্রিলে, সে সময়ে লেনদেন হয়েছে ১ দশমিক ০৭ লাখ কোটি টাকা।

সংশ্লিষ্টদের মতে, মোবাইল ব্যাংকিং পরিষেবার সম্প্রসারণ, রমজান ও ঈদের কেনাকাটার মৌসুমে আত্মীয়-স্বজনদের কাছে টাকা পাঠানোর কারণে মোবাইলে ডিজিটাল লেনদেন বৃদ্ধি পেয়েছে। দেশে বর্তমানে ১৩টি ব্যাংক মোবাইল ব্যাংকিং সেবা দিচ্ছে।

২০২৪ সালের মার্চ শেষে মোবাইল ব্যাংকিংয়ে নিবন্ধিত গ্রাহক সংখ্যা ছিল ২২ কোটি ৪০ লাখের বেশি। এরমধ্যে শহরে গ্রাহক আছে ৯ কোটি ৭৭ লাখ। এছাড়া গ্রামে রয়েছে ১২ কোটি ৬২ লাখ। এসব অ্যাকাউন্টের মধ্যে পুরুষ ১৩ কোটি এবং নরী গ্রাহক ৯ কোটি।

এ বিষয়ে বিকাশের কর্পোরেট কমিউনিকেশনস অ্যান্ড পাবলিক রিলেশনের প্রধান শামসুদ্দিন হায়দার ডালিম বলেন, মার্চে ক্যাশ আউট, ক্যাশ ইন, মার্চেন্ট পেমেন্ট, স্যালারি ডিসবার্সমেন্ট পূর্বের সকল সময়ের তুলনায় বেশি হয়েছে। এর অন্যতম কারণ হচ্ছে রোজা ও ঈদ। সাধারণত, আমাদের স্বজনরা অন্য সময় না পাঠালেও ইদের সময়ে কিছু কিছু পরিমাণে খরচ মেটানোর জন্য টাকা পাঠিয়ে থাকেন।

প্রসঙ্গত, ২০১০ সালে মোবাইল ব্যাংকিং কার্যক্রম চালু করে বাংলাদেশ ব্যাংক। ২০১১ সালের ৩১ মার্চ বেসরকারি খাতের ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের মোবাইল ব্যাংকিং সেবা চালুর মধ্য দিয়ে দেশে মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসেসের যাত্রা শুরু হয়।

Walton

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়