মঙ্গলবার

২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১


১৩ আশ্বিন ১৪২৮,

১৯ সফর ১৪৪৩

গণতান্ত্রিক উৎকর্ষ অর্জনের লক্ষ্যে রাজনৈতিক শুদ্ধাচার নিশ্চিতের আহ্বান টিআইবির

ডেস্ক রিপোর্ট || বিজনেস ইনসাইডার

প্রকাশিত: ১৭:৫৮, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১   আপডেট: ১৮:০০, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১
গণতান্ত্রিক উৎকর্ষ অর্জনের লক্ষ্যে রাজনৈতিক শুদ্ধাচার নিশ্চিতের আহ্বান টিআইবির

টিআইবি-র লোগো

ঢাকা (১৪ সেপ্টেম্বর): স্বাধীনতার পঞ্চাশ বছরে এসে গণতান্ত্রিক যাত্রায় বাংলাদেশের অবস্থান মূল্যায়নে স্বস্তিকর পর্যায়ে যাওয়া যায়নি। এই ঘাটতি রাজনৈতিক সংস্কৃতি থেকে শুরু করে পছন্দের প্রতিনিধি বেছে নেওয়ার সুযোগ, নাগরিকের আইনি ও সামাজিক অধিকারসমূহ সুরক্ষার ক্ষেত্রে সর্বজনগ্রাহ্য জাতীয় প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা এবং শুদ্ধাচার চর্চা সবকিছুর জন্যই প্রযোজ্য। তাই, গণতান্ত্রিক উৎকর্ষ অর্জনের লক্ষ্যে সর্বোচ্চ শুদ্ধাচার নিশ্চিতের তাগিদ দিয়েছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)।

আগামীকাল ১৫ সেপ্টেম্বর আন্তর্জাতিক গণতন্ত্র দিবস উপলক্ষে আজ মঙ্গলবার গণমাধ্যমে প্রেরিত এক সংবাদ-বিজ্ঞপ্তি এ কথা বলা হয়েছে। 

সংবাদ-বিজ্ঞপ্তিতে টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, অতিসম্প্রতি প্রকাশিত বৈশ্বিক গণতন্ত্র সূচকে চারধাপ এগিয়ে বাংলাদেশের ৭৬তম অবস্থান সাময়িক স্বস্তিদায়ক হলেও দীর্ঘমেয়াদে তা আশাব্যঞ্জক নয়।

জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল বাস্তবায়নের গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার হিসেবে নির্বাচন কমিশন শক্তিশালী ভূমিকা পালনে ব্যর্থ হয়েছে মন্তব্য করে  জামান বলেন, একটি দেশের গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা কতটা শক্তিশালী তা নির্ভর করে দেশটির নির্বাচন ব্যবস্থা এবং সংসদীয় কার্যাবলীর মধ্য দিয়ে।   

তিনি আরও বলেন, গণতান্ত্রিক উৎকর্ষ অর্জনে শক্তিশালী নির্বাচন কমিশন এবং নির্বাচন কাঠামোর আমূল সংস্কার আশু কর্তব্য।

টেকসই উন্নয়ন লক্ষমাত্রা (এসডিজি) অর্জনেও গণতান্ত্রিক উৎকর্ষ সাধনের বিকল্প নেই উল্লেখ করে নির্বাহী পরিচালক বলেন, আমরা চলতি দশকেই এসডিজি অর্জনে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ; অথচ এসডিজির অন্যতম অভীষ্ট শান্তি, ন্যয়বিচার ও শক্তিশালী প্রতিষ্ঠান নিশ্চিতে কিছু আইনি সংস্কার ব্যতিত জনগণের অংশগ্রহণমূলক ও কার্যকর দৃশ্যমান পদক্ষেপ নেই।  

তিনি আরও বলেন, সকলের জন্য সমান আইনি সুযোগ অর্জিত হয়নি। অংশগ্রহণমূলক সামাজিক ও আইনি কাঠামো গঠনে এখনো বহু পথ বাকি। গণতান্ত্রিক উৎকর্ষ সাধনে প্রতিবন্ধক নানা আইন ও নীতিকাঠামোর মাধ্যমে এখনও ভয়হীন, মুক্ত ও স্বাধীন মতপ্রকাশের অধিকার সংকুচিত করা হচ্ছে। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনসহ বিভিন্ন নিবর্তনমূলক আইনের মাধ্যমে গণমাধ্যম ও জনগণের সমালোচনা এবং রাষ্ট্রীয় স্বেচ্ছাচারিতার বিরুদ্ধে অবাধে কথা বলার অধিকার বাধাগ্রস্ত করা হচ্ছে, যা সকল ক্ষেত্রে শুদ্ধাচার নিশ্চিত করতে নেতিবাচক ভূমিকা রাখছে। 

Nagad

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়